Famous Flamingos

রূপকথার দেশে – একদিন !

জিম থর্প ! অ্যানথ্রাসাইট কয়লা সমৃদ্ধ এই অঞ্চলটির পুরানো নাম ছিল কার্বন কাউন্টি ( Carbon County ). ১৯৫৪ সালে স্থানীয় আমেরিকান খেলোয়াড়ের নামে নামকরণ করা হয় জিম থর্প ( Jim Thorpe).

জিম থর্প রেলস্টেশান

অ্যাপালেশিয়ান পর্বতমালায় ঘেরা ছোট্ট এই শহরতলিতে অক্টোবরের এক ঝলমলে সকালে কিছু স্বজন বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে আমি অবাক বিস্ময়ে পা রেখেছিলাম।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উত্তরপূর্বে পেনসিলভেনিয়ার একপ্রান্তে অবস্থিত এই শহরটিকে মনোরম দৃশ্য, পাহাড়ী অবস্থান এবং স্থাপত্যের কারণে “আমেরিকার সুইজারল্যান্ড” বলা হয়।চারিদিক অ্যাপালেশিয়ান পর্বতমালায় পরিবৃত এই জনপদ এক সময় ছিল আইরিশ কলোনি। এখনও সেই স্থাপত্যের নিদর্শন এর প্রতিটি স্থানে।


আইরিশ কলোনি

‘ Fall Colour’-এর কথা আগে অনেকবার শুনেছি ,পড়েছি কিন্তু চাক্ষুষ দেখার সৌভাগ্য হল এই প্রথম পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধের মার্কিন মুলুকের এই পাহাড়ি রাজ্যে এসে !

অক্টোবরের এই সময়টাকে এদেশে বলে ‘ Fall Season’.শীতকাল আসার বার্তা জানাতে প্রকৃতি এক অপরূপ সাজে সেজে  উঠেছে! ম্যাপেল,ওক গাছের পাতাগুলো নানান রঙে রঙিন। চারিদিকের পাহাড়ে ছড়িয়ে পড়েছে সেই রঙের উৎসব !

অক্টোবরের ‘ Fall Season’

যেদিকে তাকাচ্ছি প্রতিটি গাছ এক এক রঙে রাঙা ! সে যে কি অপূর্ব দৃশ্য ! ফুল নয় এ শুধু পাতার রঙ। প্রতিবছর দেশ বিদেশের বহু মানুষ ছুটে আসে এই রঙের উৎসব দেখতে।

অল্প কিছুদিন …তারপর শুরু হয়ে যাবে তীব্র শীত! বরফে ঢেকে যাবে চারিদিক…কোথায় হারিয়ে যাবে এই বিস্ময়কর রঙের উৎসব !

জিম থর্প-এর পাশ দিয়ে তিরতিরিয়ে বয়ে গেছে পাহাড়ি নদী লি-হাই। ঠিক মনে হচ্ছিল রূপকথার পাতা থেকে উঠে আসা এক দৃশ্য ! নদীর একদিকে পাহাড়শ্রেণি নানান রঙের গাছপালায় রঙিন হয়ে আছে।

লি-হাই নদী

অপরদিকে ছবির মতো ছোট্ট রেলস্টেশান… ছোট দু কামরার ট্রেন চলছে পর্যটকদের সুবিধার্থে। যতদূর চোখ যায় রাঙিয়ে যাওয়া পাহাড়শ্রেণিতে চোখ আটকে যায় !

রেলস্টেশান

সময় বড় অল্প তাই ছোট্ট এই পাহাড়ি জনপদ জিম থর্পকে পিছনে ফেলে, লি-হাই নদীকে বিদায় জানিয়ে ‘ Fall Colour’ এর বিস্ময়কে মনের চোখে নিয়ে ফিরে চললাম আমার পরের গন্তব্যে।

কিন্তু যা দেখলাম পৃথিবীর একপ্রান্তে এই পাহাড়ি রাজ্যের প্রত্যন্ত এই জনপদটিতে এসে তা আমার মনের মণিকোঠায় চির অমলিন হয়ে রয়ে যাবে। সুন্দরের সামনে দাঁড়িয়ে মুগ্ধ হয়েছি, অবাক হয়েছি, নতজানু হয়েছি কতবার কিন্তু মর্তের এই একটুকরো স্বর্গ আমার স্মৃতিতে আজীবন বয়ে চলবে। চোখ বন্ধ করলেই আমি যেন সেখানেই দাঁড়িয়ে আছি এখনও !

সুন্দরের সামনে দাঁড়িয়ে মুগ্ধ দৃষ্টিতে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *